ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) স্নাতক মান নির্দেশ করতে হাইকোর্টে রীট ও সুবিধা।

ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) স্নাতক মান নির্দেশ করতে হাইকোর্টে রীট ও সুবিধা। “বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা আইন (প্রস্তাবিত)” জাতীয় সংসদে পাস করতে যথাযথভাবে ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) কোর্সকে স্নাতক সমমান অন্তর্ভুক্ত করা হবে কিনা? এ বিষয়ে ১৯৭২খ্রি. হতে পাসকৃত ডিএইচএমএস কৃতরা অাশঙ্কা প্রকাশ করছে। ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) কৃতদের স্নাতক সমমান বিষয়ে আশঙ্কার কারণঃ  “বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা আইন (প্রস্তাবিত)” আইনটি ২০১৩খ্রি. হতে …

ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) স্নাতক মান নির্দেশে রীটের প্রস্তুতি ও সহযোগিতা।

ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) স্নাতক মান নির্দেশে রীটের প্রস্তুতি ও সহযোগিতা। বাংলাদেশের ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) কোর্সকে স্নাতক মান করতে রীটের প্রস্তুতি। রীট করা ও পরিচালনা করা অত্যন্ত ধৈর্য ও ব্যয় বহুল। সময়ের প্রয়োজনে হোমিওপ্যাথি ক্রান্তিকাল সময়ে অধিকার আদায়ে আন্দোলন-সংগ্রামের মাধ্যমে গড়ে উঠা একমাত্র অরাজনৈতিক সংগঠন “বাংলাদেশ ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) চিকিৎসক, শিক্ষক, শিক্ষার্থী অধিকার পরিষদ” এর কেন্দ্রীয় কমিটি, বাংলাদেশ প্রস্তাবিত …

ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) কোর্সকৃত’রা স্নাতক সমমানে নির্দেশের জন্য হাইকোর্টে রীটের প্রস্তুতি।

ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) কোর্সকৃত’রা স্নাতক সমমানে নির্দেশের জন্য হাইকোর্টে রীটের প্রস্তুতি। ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) কোর্সকে স্নাতক সমমান করতে অথবা সর্ট (ব্রিজ) কোর্সের মাধ্যমে ডিএইচএমএস পাসকৃত সকলকে বিএইচএমএস ডিগ্রি করে স্নাতক সমমান দিতে নীতিমালা প্রণয়ন করে কার্যকর করতে ১৯৭২খ্রি. হতে শুধু আন্দোলন-সংগ্রাম, মানববন্ধন, সংবাদ সম্মেলন না করে আইনগত পদক্ষেপের জন্য ঐক্যবদ্ধ হয়ে অবিলম্বে মহামান্য হাইকোর্টে রীট করে ও …

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী’কে স্মারকপত্র, ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) কোর্স এবং স্নাতক সমমান-সমাধান।

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী’কে স্মারকপত্র, ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) কোর্স এবং স্নাতক সমমান-সমাধান। বাংলাদেশে ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) কোর্সের স্বপ্নদ্রষ্টা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর অনুমোদনে ও আইনের মাধ্যমে বাংলাদেশে ১৯৭২খ্রি. প্রতিষ্ঠা হয় রাষ্ট্রীয় বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথি বোর্ড ও চালু হয় আন্তর্জাতিক পর্যায়ের “মেডিক্যাল স্নাতক ডিপ্লোমা” ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) কোর্স। ১৯৭২খ্রি. হতে চার বছর ছয় মাস মেয়াদি ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) কোর্স। …

পা দেখে বোঝা যায় কার কী রোগ

সম্প্রতি একটি জরিপে দেখা গেছে, ৯০% মানুষই পা নিয়ে নানা সমস্যায় ভুগছেন। পায়ের বিভিন্ন সমস্যা কিন্তু জানিয়ে দেয় শরীরের নানা সমস্যার কথা। জেনে নিন সেগুলো সম্পর্কে। সবসময় শীতল শীতের সময় পা ঠাণ্ডা হতেই পারে। কিন্তু পুরো বছরই যাদের পা শীতল থাকে তাদের রক্ত সঞ্চালনে সমস্যা থাকতে পারে। তাই অবহেলা না করে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া উচিত। পায়ের …

সিগারেটে হতে পারেন অন্ধ

আপনি কি সিগারেট খান? তাহলে আরেকবার সিগারেট খাওয়ার আগে ভাবুন। অনেকেই হয় তো জানেন না সিগারেট শুধু হার্ট বা ফুসফসের নয়, চোখেরও মারাত্নক ক্ষতি করে। সম্প্রতি একটি গবেষণায় এমনই তথ্য উঠে এসেছে। ধূমপানের ফলে রেটিনার ব্যাপকভাবে ক্ষতি হয়। মূলত রেটিনা আমাদের যে কোনো জিনিস দেখতে সাহায্য করে। এটি আসলে ক্যামেরার মত। যা মস্তিষ্কে একটি বস্তুর …

যে চার ধরনের লোক ভুল করেও বেদানা খাবেন না,

 সারা পৃথিবীতে শাক সবজি ও সব রকমের শষ্য উতপন্ন হয়। আর আমাদের জন্য প্ররকৃতির সবচেয়ে বড় উপহার হল ফল। ফল সবার জন্য খুবিই উপকারি। সব বয়সের মানুষের উচিত রোজ একটি করে ফল খাওয়া। কিন্তু এমন কিছু ফল আছে যা বিশেষ কিছু রোগ থাকলে খওয়া উচিত নয়। কোন রোগ হলে ডাক্তাররা তাকে সুস্থ করে তোলার জন্য …

গ্যাসট্রিকের ওষুধ দীর্ঘদিন খেলে পাকস্থলীর ক্যানসারের ঝুঁকি!

অনেকে আলসার, গ্যাসট্রিকের ওষুধ চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া দীর্ঘদিন খান। এসব ওষুধ থেকে কি পাকস্থলীর ক্যানসার হতে পারে? প্রশ্ন: পাকস্থলীর আলসার বা গ্যাসট্রাইটিসের কারণে  যারা দীর্ঘদিন ওষুধ খেয়ে যান তাদের বেলায় কি পাকস্থলীর ক্যানসার হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে? উত্তর : অবশ্যই। এই ধরনের রোগীদের অবশ্যই ঝুঁকিটা বেশি। এর কারণর হলো, যতক্ষণ পর্যন্ত পাকস্থলীর লাইনিং এপিথিলিয়ামে আলসারের ভাব থাকবে …

মূত্রথলী সুস্থ রাখতে যা করবেন

কিডনি থেকে প্রস্রাব এসে যেখানে জমা হয় সেটাই হলো মূত্রথলী। কয়েকটি কারণে আপনার মূত্রথলী ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। এ কারণে প্রস্রাব করতে গেলে ব্যথা হতে পারে। তবে কিছু বিষয় মেনে চললে মূত্রথলী সুস্থ থাকবে। দেখে নিন সেরকম কয়েকটি অভ্যাস –সম্পূর্ণ প্রস্রাব নিশ্চিত করুন প্রতিবার সম্পূর্ণ প্রস্রাব হলো কিনা সেটা নিশ্চিত করতে হবে। বিশেষ করে নারীদের ক্ষেত্রে এটা খুবই …

Emergency (জরুরি প্রাথমিক চিকিৎসা) :-

                                          Emergency (জরুরি প্রাথমিক চিকিৎসা) :- ♣* যে-কোন ধরণের ঔষধের বা বিষাক্ত পদার্থের বিষক্রিয়া নিরাময়ের জন্য Nux vomica (শক্তি কিউ, ৩,৬, ১২,৩০,২০০) ঘনঘন খেতে থাকুন। ♣* প্রচন্ড গরমের সময় ঠান্ডা খেয়ে কোন রোগ হলে Urtica urens …